«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

আমন ধান রোপণে ব্যস্ত গোদাগাড়ীর চাষিরা

বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০ | ৪:৩৮ অপরাহ্ণ | 106 বার

আমন ধান রোপণে ব্যস্ত গোদাগাড়ীর চাষিরা
আমন ধান রোপণে ব্যাস্ত চাষী,শ্রমিকরা।

মহানন্দা নিউজ-



 

মৌসুমের শুরুতে চাষ উপযোগী বৃষ্টি হওয়ায় আমন ধান চাষাবাদ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন রাজশাহীর গোদাগাড়ী  উপজেলার চাষিরা। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির পর আমন ধান চাষাবাদের চাষিরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন।

আষাঢ়-শ্রাবণ মাস আমনের চারা রোপণের উপযুক্ত সময় হলেও, অগ্রীম বৃষ্টি হওয়ার কারণে আষাঢ়ের প্রথম সপ্তাহ থেকে জমি পরির্যাসহ রোপনের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা।আগামী শ্রাবণ মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে জমিতে চারা রোপণের কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন চাষিরা।

উপজেলার কাকনহাট এনায়েতুল্লাপুর গ্রামের চাষী সুজন কুমার বলেন, এবার আমি পাঁচ বিঘা জমিতে আমন ধান রোপণ করার প্রস্তুতি নিয়েছি।নাসির বলেন আমি ২ বিঘা জমিতে ধান রোপন করবো। আমন ধানে সেচ দিয়ে চাষ করলে তেমন একটা লাভ হয় না। এসময় ধান রোপণ করতে প্রকৃতির বৃষ্টির দিকে তাকিয়ে থাকতে হয়। এবার আষাঢ়ের শুরুতেই বৃষ্টি হওয়ায় সেচ দিয়ে জমি চাষাবাদ করতে হয়নি।সেজন্য পানি সেচের খরচ থেকে বেঁচে গেলাম।

রিশিকুল বিলদুবইলের চাষী আতাহার বলেন এখন প্রতিদিন বৃষ্টি হচ্ছে আর এই বৃষ্টিতে ভিজে অনেক কষ্ট করে আমরা ধান রোপণ করছি। রিশিকুল ভাজনাপাড়ার রবিউল জানান, গত বছর এসময় আকাশের বৃষ্টি না থাকায় ধান রোপণ করতে পারিনি। এবার আষাঢ়ের শুরুতেই পর্যাপ্ত পরিমাণ বৃষ্টি হওয়ায় আমরা আমন ধান রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছি। আশা করছি ভাল ফলন হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম বলেন, এখনো আমন ধান রোপণের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক হয়নি।গত বছর ২৪ হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষাবাদ হয়েছিলো। এবছর আঊস ধান বৃদ্ধির কারনে আমন ধান চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা অনেক কমে যাবে।এবছর আঊস ধান চাষাবাদ হয়েছে ১৩ হাজার ৯’শত ৭৫ হেক্টর জমিতে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

চাঁদাবাজদের দখলে অরক্ষিত ঢাকা বিমানবন্দর রেলস্টেশন!

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল