«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

কেশবপুরে আমের বাম্পার ফলন হওয়ায় আমচাষীদের মুখে হাসি

শুক্রবার, ১৫ মে ২০২০ | ৮:৪১ পূর্বাহ্ণ | 52 বার

কেশবপুরে আমের বাম্পার ফলন হওয়ায় আমচাষীদের মুখে হাসি

আজিজুর রহমান, কেশবপুর(যশোর)প্রতিনিধি:



কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের আমের ভালো বাম্পার ফলন দেখা দিয়েছে। গাছ গুলি পরিচর্যা করার ফলে চলতি মৌসুমে আমের ভালো ফলন হয়েছে বলে আমচাষীরা জানিয়েছে। ইতিপূর্বে কিছু গাছের আম পাঁকতে শুরু করেছে। গাছগুলোতে মুকুল আসার পর আম ধরেছে গাছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে, বড় কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে সময় মতো আমচাষীরা তাদের গাছের আম ঘরে তুলতে পারবে।

 

আগামী কয়েক দিনের মধ্যে প্রায় আম বড় হয়ে যাবে। আর এ কারণেই আশায় বুক বেধে আমচাষীরা চালিয়ে যাচ্ছেন গাছের পরিচর্যা। অবশ্য গাছে মুকুল আসার আগে থেকেই বাগান পরিচর্যা করছেন চাষীরা। উপজেলা কৃষি

 

অফিস সূত্রে জানা গেছে, কৃষকদের বাণিজ্যিকভাবে আম চাষে তেমন আগ্রহ না থাকলেও উপজেলার ১১ টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় বারি আম, আমরুপালি, ফজলি, খিড়সা, ল্যাংড়া, রাজভোগ ও গোপালভোগসহ বিভিন্ন উন্নত জাতের আম বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে। অধিক লাভজনক হওয়ায় প্রতি বছর বাগানের সংখ্যা বাড়ছে। বাণিজ্যিকভাবে ব্যাপক আম চাষ না হলেও পরিত্যাক্ত জমি এবং বাড়ির আশেপাশের জায়গাগুলোতে অনেক গাছ রয়েছে। বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আম চাষী পচা গাজী জানান, আমার অনেক গাছে মুকুল আসার পর এখন গাছগুলিতে গুটি ধরার পর আম বড় হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যে গাছগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে আম ধরছে। আবহাওয়া অনূকূলে থাকলে এবার আমের বাম্পার ফলন হবে।

 

বাজিতপুর গ্রামের নজরুল ইসলাম জানান, প্রতি বছরে আমার বসত বাড়ির আম গাছ গুলিতে সঠিক পরিচর্যা করায় প্রতি বছরই আমের ভাল ফলন পাওয়া যায়। কৃষি অফিসের পরামর্শে গাছে মুকুল আসার ১৫-২০ দিন আগেই পুরো গাছ সাইপারম্যাক্সিন ও কার্বারিল গ্রুপের কীটনাশক দিয়ে ভালভাবে স্প্রে করে গাছ ধুয়ে দিয়েছিলাম। এখন গাছে আমে ধরেছে। আশা করছি এবারও ফলন ভালো হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মহাদেব চন্দ্র সানা জানান, কৃষকদের বাণিজ্যিকভাবে আম চাষে তেমন আগ্রহ না থাকলেও এ বছরে ৫৫০ হেক্টর জমিতে আম চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। আম গাছে মুকুল আসার আগে এবং আমের গুটি হবার পর নিয়মিত ছত্রাকনাশক স্প্রে করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল আমচাষীদেরকে।


বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।


 

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

সংসারের হাল ধরেও ভাটখৈর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে, জিপি-এ ৩.৭৮ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে নূরুজ্জামান

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল