«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

প্রযুক্তির উৎকর্ষে কৃষি খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন

সোমবার, ০২ মার্চ ২০২০ | ৩:১০ পূর্বাহ্ণ | 124 বার

প্রযুক্তির উৎকর্ষে কৃষি খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন

মহানন্দা নিউজ-



 

প্রযুক্তির ব্যবহার দেশের কৃষি খাতে রীতিমতো বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে। বীজ বপন থেকে ফসল মাড়াই, এমনকি সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও প্রযুক্তির ব্যবহার প্রতিনিয়ত বাড়ছে। এর ফলে ১৯৭১ সালের তুলনায় কৃষিতে উৎপাদন বেড়েছে ২৬ গুণ। আর দুর্ভিক্ষ ও ক্ষুধা-দারিদ্র্যের দেশ থেকে বাংলাদেশ হয়েছে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

বর্তমানে দেশের ৮০-৯০ ভাগ কৃষকই প্রযুক্তিনির্ভর কৃষি সরঞ্জাম ব্যবহার করছেন। প্রযুক্তির উৎকর্ষে কৃষি গবেষণাতেও ব্যাপক উন্নতি করেছে বাংলাদেশ। ফলে প্রতিনিয়তই উচ্চ ফলনশীল ফসলের জাত উদ্ভাবনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

গত এক দশকের ব্যবধানে বাংলাদেশের কৃষিতে প্রায় ৫০ ধরনের নতুন জাতের ধান যুক্ত হয়েছে। একইভাবে যুক্ত হয়েছে নতুন জাতের ভুট্টা, গম, সরিষা ও বিভিন্ন ধরনের সবজি। সব ধরনের শস্যখেতে বালাইনাশক কীটনাশকের ব্যবহার বেড়েছে, যা মূলত প্রযুক্তিরই আশীর্বাদ। এর ফলে উচ্চ ফলনশীল জাতের শস্য দেশের খাদ্যচাহিদা মেটাতে প্রধান ভূমিকা পালন করছে। খাদ্যশস্য উৎপাদনের দিক থেকে বাংলাদেশ পেছনে ফেলেছে আর্জেন্টিনা, চীন ও ব্রাজিলকে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্যমতে, এক দশকে বাংলাদেশ বিশ্বে ধান, চাল ও মাছ উৎপাদনে চতুর্থ অবস্থানে, সবজি উৎপাদনে তৃতীয়, ছাগল উৎপাদনে চতুর্থ, আম উৎপাদনে সপ্তম স্থান অর্জন করেছে। একইভাবে আলু উৎপাদনেও এক বিস্ময় সৃষ্টি করেছে বাংলাদেশ। বিভিন্ন ফসলের উচ্চ ফলনশীল জাত উদ্ভাবনেও শীর্ষস্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

স্বাধীনতার পর গরু-মহিষ দিয়ে হাল চাষ করে ফসল ফলানো আর হাতে নিড়ানি নিয়ে আগাছা দমন করাই ছিল এ খাতের একমাত্র ভরসা। সেচকাজের ভরসা ছিল প্রাকৃতিক বৃষ্টি

কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় কলের লাঙল এসেছে। এখন প্রায় ৭৫ ভাগ জমিতেই কলের লাঙল অর্থাৎ পাওয়ার টিলার কিংবা ট্রাক্টর ব্যবহার করা হয়। একই সঙ্গে তীব্র খড়ার মৌসুমে সেচের জন্য বৃষ্টির পানির আশায় বসে থাকতে হয় না। শ্যালো মেশিন কিংবা গভীর নলকূপের সাহায্যে সেচকাজ পরিচালনা করা হয়। বীজ বপন, চারা রোপণ, কাটাই, মাড়াই, আগাছা দমন ও সংরক্ষণ প্রতিটি ধাপেই উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে হরহামেশা। তবে দেশের জনসংখ্যা যে হারে বাড়ছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে খাদ্য চাহিদার জোগান দিতে অদূর ভবিষ্যতে কৃষি খাতের উৎপাদন বাড়াতে হবে আরও কয়েকগুণ। কেননা দেশের কৃষিজমির পরিমাণ প্রতিনিয়তই কমছে। কৃষিজ জমিতে গড়ে উঠছে নিত্যনতুন বসতি। অর্থনীতির অন্যান্য উৎপাদন অব্যাহত রাখতে গড়ে উঠছে নতুন নতুন শিল্প-কারখানা। কৃষি খাতের কর্মসংস্থান কমার সঙ্গে বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য শিল্প-কারখানা গড়ে উঠছে কৃষিজমির ওপর। এ জন্য কৃষি খাতে সরকারের বার্ষিক বাজেট বরাদ্দ আরও বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। বিশেষ করে বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তি ও কীটনাশকের ব্যবহারের ফলে বিভিন্ন ফসলের খেতে বেড়েছে রোগবালাই। এসব দমনেও দরকার সরকারের সহায়তা। এর অংশ হিসেবে কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে সম্প্রতি ৪০০ কোটি টাকা চেয়েছিল কৃষি মন্ত্রণালয়। কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয় অনুমোদন দিয়েছে মাত্র ১০০ কোটি টাকা। অন্যদিকে প্রায় এক বছর ধরে কৃষি খাতে বন্ধ রয়েছে নানা ধরনের ভর্তুকি কার্যক্রম। আগামী বাজেটে কৃষি যন্ত্রপাতি কিনতে বা কৃষিকে আধুনিকীকরণ করতে অন্তত ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন বলে মনে করে কৃষি মন্ত্রণালয়।

এ বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘কৃষিব্যবস্থাকে শতভাগ যান্ত্রিকীকরণ করতে চায় সরকার। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আলাদা ৪০০ কোটি টাকার থোক বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। আগামী বাজেটে আরও বেশি অর্থ বরাদ্দের প্রয়োজন হবে। আমাদের জনসংখ্যার ভিত্তিতে জমির পরিমাণ খুবই কম। মানুষের গড় আয়ু বাড়ায় আর শিল্প খাতের প্রসারের কারণে কৃষিজমির পরিমাণও কমছে। ফলে ভবিষ্যতে খাদ্যচাহিদা মেটাতে হলে উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে। আর এর জন্য প্রয়োজন উচ্চ ফলনশীল জাতের উদ্ভাবন, যার জন্য প্রয়োজন বেশি বেশি গবেষণা। ’ এ জন্য প্রযুক্তিনির্ভরতার কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করেন তিনি।

আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান দি মেটাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী সাদিদ জামিল বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি বিভিন্নভাবে কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণের ব্যবস্থাটি সচল রাখার। বিভিন্ন মেয়াদে প্রকল্পের মাধ্যমে যে সহায়তা দেওয়া হতো, সেটি গত জুনে শেষ হয়েছে। কার্যত তখন থেকেই বন্ধ রয়েছে যান্ত্রিকীকরণে ভর্তুকি কার্যক্রম।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, সারা দেশে বর্তমানে ট্রাক্টর ব্যবহৃত হচ্ছে প্রায় ৫০ হাজার। পাওয়ার টিলার ব্যবহৃত হচ্ছে প্রায় ৭ লাখ। এসব যন্ত্রের মাধ্যমে মাটি কর্তনের প্রায় ৯০ শতাংশ চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে। ধান কাটা ও মাড়াইয়ে ব্যবহৃত হয় কম্বাইন্ড হার্ভেস্টার। এ যন্ত্রের চাহিদা রয়েছে ১ লাখের বেশি। কিন্তু দেশে ব্যবহৃত হচ্ছে ১ হাজারের কম। আর ধানবীজ বোনার জন্য রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের প্রয়োজন ২ লাখ। অথচ দেশে এ যন্ত্রটি ব্যবহৃত হচ্ছে ১ হাজারেরও কম। শুধু ধান কাটার যন্ত্র রিপারের চাহিদা ১ লাখ। অথচ দেশে এ যন্ত্র রয়েছে মাত্র ৫ হাজার। আর ধান বোনার জন্য পিটিও সিডার আছে মাত্র আড়াই হাজার। দেশে এ যন্ত্রের চাহিদা রয়েছে ১ লাখ। একটি কম্বাইন্ড হার্ভেস্টারের দাম ২৫-৩০ লাখ টাকার মধ্যে। বপন ও কর্তন যন্ত্রের দাম বেশি হওয়ায় কৃষকদের জন্য ক্রয় করা কষ্টসাধ্য। সরকার ৫০ শতাংশ ভর্তুকি দিলে কৃষকদের মধ্যে কিছুটা আগ্রহ তৈরি হচ্ছে। কিন্তু সেটি ৯ মাস ধরে বন্ধ থাকায় বিক্রিতে এক ধরনের ভাটা পড়েছে। কিছু মাঝারি ও হালকা কৃষিযন্ত্র বিক্রি হলেও বড় কৃষিযন্ত্রের বিক্রি প্রায় শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে। জানা গেছে, একসময় বাংলাদেশের পুরো কৃষিব্যবস্থা ছিল প্রকৃতিনির্ভর। দেশের ৭০ ভাগ লোক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কৃষির ওপর নির্ভরশীল। দেশে মোট উৎপাদনের প্রায় ২৪ শতাংশ আসে কৃষি থেকে। কৃষি খাতে প্রবৃদ্ধির হার ৪ শতাংশ। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো সবুজ বিপ্লবের ফলে তথা নানা রকম ফসলের জাত উন্নয়নে গত ৫০ বছরে দানাশস্যের ফলন বেড়েছে কয়েকগুণ। উচ্চ ফলনশীল ধান ও গমের জাতের সূচনার ফলে স্বাধীনতা-পরবর্তী বাংলাদেশে খাদ্য উৎপাদন প্রায় তিনগুণ বেড়েছে। প্রযুক্তি প্রয়োগে কৃষির অন্যান্য শাখা তথা পোলট্রি, গবাদিপশু ও মৎস্য চাষেও হয়েছে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। এ বিষয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ইমেরিটাস ড. আবদুস সাত্তার মন্ডল বলেন, আধুনিক চাষাবাদে উন্নত প্রযুক্তির ট্রাক্টর ও কম্বাইন্ড হার্ভেস্টারের ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে কৃষি খাতে গবেষণা আরও বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি। জানা গেছে, স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে ধানের উৎপাদন তিনগুণেরও বেশি, গম দ্বিগুণ, সবজি পাঁচগুণ ও ভুট্টার উৎপাদন বেড়েছে দশগুণ। দুই যুগ আগেও দেশের অর্ধেক এলাকায় একটি এবং বাকি এলাকায় দুটি ফসল হতো। বর্তমানে দেশে বছরে গড়ে দুটি ফসল হচ্ছে। সরকারের যুগোপযোগী পরিকল্পনা, পরিশ্রমী কৃষক, মেধাবী কৃষিবিজ্ঞানী ও সম্প্রসারণবিদদের যৌথ প্রয়াসেই এ সাফল্য। স্বাধীনতার পর দেশে প্রতি হেক্টর জমিতে দুই টন চাল উৎপাদিত হতো। এখন হেক্টরপ্রতি উৎপাদিত হচ্ছে চার টনেরও বেশি। এ ছাড়া হেক্টরপ্রতি ভুট্টা উৎপাদনে বিশ্বে গড় ৫ দশমিক ১২ টন। অথচ বাংলাদেশে এ হার ৬ দশমিক ৯৮ টন। খাদ্যশস্যে প্রতি হেক্টরে ১০ দশমিক ৩৪ টন উৎপাদন করে বাংলাদেশের ওপরে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশের পেছনে রয়েছে আর্জেন্টিনা, চীন ও ব্রাজিল। ফসলের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের সফলতাও বাড়ছে। বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) বেশ কয়েকটি জাত ছাড়াও এরই মধ্যে পাটের জীবন-রহস্য উন্মোচন করেছে। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট ও বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা মোট ১৩টি প্রতিকূল পরিবেশসহিষ্ণু ধানের জাত উদ্ভাবন করেছেন। এর মধ্যে লবণসহিষ্ণু নয়টি, খরাসহিষ্ণু দুটি ও বন্যাসহিষ্ণু চারটি ধানের জাত উদ্ভাবন করেছেন তারা। ২০১৩ সালে বিশ্বে প্রথমবারের মতো জিঙ্কসমৃদ্ধ ধানের জাত উদ্ভাবন করেন বাংলাদেশের কৃষি গবেষকরা। উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে এতগুলো প্রতিকূল পরিবেশসহিষ্ণু ধানের জাত উদ্ভাবনের দিক থেকেও বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

জমি লিখে নিয়ে ঈদের দিনে বৃদ্ধা মাকে রাস্তায় ফেলে গেল ৩ ছেলে!

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল