«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

কৃষিজমি নষ্ট করে কোনো শিল্পায়ন নয় : প্রধানমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার, ০৭ নভেম্বর ২০১৯ | ৬:২৫ পূর্বাহ্ণ | 32 বার

কৃষিজমি নষ্ট করে কোনো শিল্পায়ন নয় : প্রধানমন্ত্রী

মহানন্দা নিউজ-   আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যত্রতত্র শিল্পকারখানা স্থাপনের বিষয়ে নিরুৎসাহিত করে বলেছেন, যেখানে-সেখানে শিল্প-কারখানা করতে দেওয়া হবে না। দেশের প্রয়োজনে আমরা শিল্পায়ন করব। আমরা উন্নত হব, শিল্পায়নে যাব। কিন্তু কৃষি ও কৃষককে ত্যাগ করে নয়।

১৬ কোটি মানুষকে খাওয়াতে হবে। কৃষিজমি নষ্ট করে শিল্পায়ন করা যাবে না।

গতকাল রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কৃষক লীগের দশম ত্রি-বার্ষিক জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, আরও অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। দেশের উন্নয়ন ও অর্জনের ধারাবাহিকতাকে ধরে রাখতে হবে। বিএনপির সময় সারের জন্য গুলি খেয়ে ১৮ জন কৃষককে জীবন দিতে হয়েছে। এখন আর কৃষককে জীবন দিতে হয় না। এখন সার কৃষকের হাতে পৌঁছে যায়। তিনি বলেন, আমরা ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল করে দিচ্ছি। শিল্প-কারখানা করার দরকার হলে সেখানে আমরা প্লট দিয়ে দেব। তিন ফসলি জমিতে কখনই শিল্প-কারখানা নয়। আমাদের কৃষিজমি বাঁচাতে হবে, মানুষকে খাওয়াতে হবে। আর খাদ্য চাহিদা কোনো দিন শেষ হয় না

জনসংখ্যা বাড়বে, খাদ্যের চাহিদাও বাড়বে। কাজেই একটি দেশের জন্য, একটি সমাজের জন্য কৃষি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বেলা ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলনস্থলে পৌঁছলে সারা দেশ থেকে আসা কৃষক লীগের কাউন্সিলর ও ডেলিগেটরা স্লোগান দিয়ে তাঁকে স্বাগত জানান। পরে জাতীয় সংগীতের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় পতাকা এবং কৃষক লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লা দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী শান্তির প্রতীক পায়রা এবং বেলুন উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। কৃষক লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন সংগঠনের দফতর সম্পাদক নাজমুল ইসলাম পানু। এরপর ১৫ আগস্টসহ সব শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অভ্যর্থনা উপ-কমিটির আহ্বায়ক শরীফ আশরাফ আলী। সাংগঠনিক রিপোর্ট পেশ করেন বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক খন্দকার শামসুল হক রেজা। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, ভারতের সর্বভারতীয় কৃষাণ সভার সাধারণ সম্পাদক অতুল কুমার অঞ্জন। উদ্বোধনের পর দুপুরে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে নতুন কমিটি নির্বাচন করা হয়। এতে সভাপতি হয়েছেন সমীর চন্দ ও সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি।

দুজনই সদ্য বিদায়ী কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

সাত দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশ : বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে দ্বিতীয় অধিবেশনে কৃষক লীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

অপকর্মের কথা আলোচনা করায় স্কুল ছাত্রকে পরিষদে ডেকে মারধর করলেন চেয়ারম্যান টুলু

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল