«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

কেরানীগঞ্জ ইটভাটার বিষাক্ত ধোঁয়ায় স্বাস্থ্যঝুঁকি

বুধবার, ০৯ অক্টোবর ২০১৯ | ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ | 107 বার

কেরানীগঞ্জ ইটভাটার বিষাক্ত ধোঁয়ায় স্বাস্থ্যঝুঁকি
কেরানীগঞ্জের কোণ্ডায় যত্রতত্র গড়ে উঠেছে ইটভাটা। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে মানুষ। ছবি: সংগৃহীত

কেরানীগঞ্জের কোণ্ডা এলাকায় ইটভাটার জন্য

অবাধে মাটি কাটা হচ্ছে। এতে ক্রমেই এলাকার

কৃষিজমি কমছে, বাড়ছে ছোট-বড় জলাশয়। আর

ইটভাটাগুলোর বিষাক্ত ধোঁয়ায় মারত্মক

স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন এলাকাবাসী।

এদিকে ইউনিয়নের ভেতরে আজও গড়ে

ওঠেনি পরিকল্পিত সড়ক। অপ্রশস্ত মাটির সড়কে

মানুষের চলাচল কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ছে। দক্ষিণ

কেরানীগঞ্জ থানাধীন কোণ্ডা ইউনিয়ন এলাকাটি

২৫ দশমিক ৩৮ বর্গকিলোমিটার।

এখানে ভোটার সংখ্যা ৬৭ হাজার ২০৪ জন হলেও

বহিরাগত ও ভাড়াটিয়াসহ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস।

কোণ্ডা ইউনিয়ন কেরানীগঞ্জের অন্যতম

সুবিধাবঞ্চিত এলাকা হিসেবে পরিচিত।

অপ্রশস্ত ও অপরিকল্পিত রাস্তা থাকায় আজও এখানকার

অভ্যন্তরীণ চলাচলে সিএনজিচালিত অটোরিকশা-

সিএনজি ও ইজিবাইকসহ ব্যবহার হয়।

স্বাধীনতার আগে থেকেই কোণ্ডায় ইটভাটা

গড়ে উঠেছে। বর্তমানে এখানে ৬০ থেকে

৬৫টি ইটভাটা রয়েছে, যেসব ইটভাটায় এলাকার মাটিসহ

দূরদূরান্ত থেকে মাটি আনা হয়।

জানা যায়, কোণ্ডায় প্রায় ৫ হাজার একর কৃষিজমিতে

ধান-পাটসহ বিভিন্ন রবিশস্য চাষ করা হতো। ৩০ বছরে

পর্যায়ক্রমে তা কমতে কমতে হাজার একরে

নেমে এসেছে।

এখানকার প্রধান সড়কসহ অভ্যন্তরীণ প্রায় ৫২

কিলোমিটার সড়কের মধ্যে এখনও ১৫ কিলোমিটার

সড়ক কাঁচা। ইটের সলিং রয়েছে প্রায় ৭ কিলোমিটার,

এছাড়া বাকি প্রায় ৩০ কিলোমিটার সড়ক পাকা থাকলেও

সেগুলো অপ্রশস্ত ও অপরিকল্পিত।

এখানে ৫-৬ কিলোমিটার ড্রেনেজ ব্যবস্থা

থাকলেও বাকি পাকা সড়কগুলোতে নেই

ড্রেনেজ ব্যবস্থা। ইউনিয়নের প্রধান ৫-৬

কিলোমিটার সড়ক প্রশস্ত থাকলেও অভ্যন্তরীণ

বাকি সড়কগুলো ১২ থেকে ১৪ ফুট প্রশস্ত।

এখানকার নদীর ঘাটগুলো এখনও অনুন্নত।

ইউনিয়নের প্রধান রাস্তা হাসনাবাদ থেকে

দোলেশ্বর-কাওটাইল হয়ে ভ্রাহ্মণগাঁও গুদারাঘাট

পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার সড়ক অপ্রশস্ত, নেই

ড্রেনেজ ব্যবস্থা।

একইভাবে ভ্রাহ্মণগাঁও থেকে জাজিরা পর্যন্ত ৩

কিলোমিটার, পানগাঁও থেকে পানগাঁও গুদারাঘাট পর্যন্ত

দেড় কিলোমিটার, কাজীরগাঁও থেকে

আলীগঞ্জ গুদারাঘাট পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার,

জাজিরা থেকে মোল্লারহাট স্ট্যান্ড বাজার পর্যন্ত

প্রায় ৪ কিলোমিটার, স্ট্যান্ড বাজার থেকে মির্জাপুর

বাজার প্রায় ৩ কিলোমিটার, মির্জাপুর থেকে আড়াকুল

হয়ে আইন্তা পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটার সড়ক

অপ্রশস্ত ও অপরিকল্পিত।

ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ বেশ কিছু রাস্তায় ইটের

সলিং রয়েছে। এসব রাস্তায় কোনো প্রকার

যানবাহন চলাচল করতে পারে না।

ওই সব এলাকায় গর্ভবতী নারীদের হাসপাতালে

যাতায়াতে নানান প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। এছাড়াও

এখানে স্বাস্থ্যসেবার সুবিধা অনেক কম। মশা-মাছির

উপদ্রব বেশি।

এখানকার ইটভাটাগুলো কালোধোঁয়ায় চারদিকে

ছড়িয়ে পড়ে বলে পরিবেশ এখন হুমকির মুখে।

কোণ্ডার অধিকাংশ মানুষ শ্বাসকষ্টে ভুগছেন।

আর ওইসব ইটভাটার জন্য এলাকার মাটি এমনভাবে কাটা

হয়েছে যে, এলাকার সর্বত্রই মনে হবে

গভীর বিরান ভূমি। ফসলি জমি এখানে অনেক কম।

চারদিকে শুধু ছোট-বড় জলাশয়। কাওটাইল এলাকার

অধিবাসী সুশিল দাস যুগান্তরকে বলেন, আমাদের

কোণ্ডা ইউনিয়ন এলাকাটি সর্বাধিক সুবিধাবঞ্চিত।

এখানে কোনো পরিকল্পিত সড়ক নেই। চারদিকে

বাতাসে শুধু ইটভাটার ধোঁয়া ভেসে বেড়ায়।

কোণ্ডা থেকে নগরীর প্রাণকেন্দ্রে

যেতে হলে অনেক কষ্ট করে যেতে হয়।

অভ্যন্তরীণ যানবাহনের ভাড়াও গুনতে হয় তিনগুণ।

এখানে ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই বললেই চলে।

কোণ্ডা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার মো.

হারুন-অর-রশিদ যুগান্তরকে বলেন, কোণ্ডা

ইউনিয়নে এক সময় প্রচুর শষ্য ফলত। আর সবাই

ছিলেন কৃষিনির্ভর। শান্তিপূর্ণ জীবনযাপন করতেন

অধিবাসীরা।

বর্তমানে ইটভাটায় সব শেষ। তবে এলাকাটিকে

পরিকল্পিত নাগরিক সুবিধাসম্পন্ন নগরে পরিণত

করতে হলে আধুনিকভাবে পরিকল্পিত রাস্তাঘাট

নির্মাণ করতে হবে। পাশাপাশি সব নাগরিকের সেবা

প্রদানের জন্য উপযোগী সব ব্যবস্থা গ্রহণ

করতে হবে।

কোণ্ডা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুহম্মদ সাইদুর

রহমান চৌধুরী (ফারুক) যুগান্তরকে বলেন, কোণ্ডা

ইউনিয়নে ইটভাটার পরিমাণ কমে যাবে। এ বিষয়ে

আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

আর এখানকার রাস্তাগুলোর উন্নয়ন পর্যায়ক্রমে

করা হয়েছে, যা অব্যাহত থাকবে। তবে

এলাকাটিকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে সবকিছু

করা হচ্ছে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

অযথা ঘোরাঘুরি করায় পুঠিয়াতে দুজন’কে জরিমানা

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল