«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

বন্যা ও ঈদের প্রভাব

জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯ | ৭:০৮ পূর্বাহ্ণ | 50 বার

জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে

বন্যা ও কোরবানি ঈদের প্রভাব পড়েছে বাজারে। তাই জুলাই মাসে দেশের সার্বিক মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে। সেই সঙ্গে খাদ্য ও খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতিও বাড়তি।

এ সময় সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয়েছে ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ, যা তার জুনে ছিল ৫ দশমিক ৫২ শতাংশ। খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪২ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। এছাড়া খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয়েছে ৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তৈরি করা ভোক্তামূল্য সূচক (সিপিআই) প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে মঙ্গলবার একনেক বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, বিবিএসের মহাপরিচালক কৃষ্ণা গায়েনসহ পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যরা।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, কোরবানি ঈদের কারণে মানুষ মাঠপর্যায়ে গিয়ে কেনাকাটা বেশি করেছে। তাছাড়া বন্যার কারণে অনেক শাকসবজি নষ্ট হয়ে গেছে। সেই সঙ্গে সরবরাহ চেইনের মধ্যে সমস্যা ছিল। তাই মূল্যস্ফীতি বেড়েছে।

বিবিএস বলছে, মূল্যস্ফীতির হ্রাস-বৃদ্ধি পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, মাছ, মাংস, ডিম, শাক-সবজি, ভোজ্যতেল, মসলা, কোমল পানীয়, পরিধেয় বস্ত্রাদি, বাড়িভাড়া, গ্যাসের দাম বৃদ্ধি, চিকিৎসাসেবা, শিক্ষা উপকরণসহ বিভিন্ন দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, জুলাইয়ে গ্রামে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ। খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৬০ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ২৭ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ।

অন্যদিকে জুলাইয়ে শহরে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয়েছে ৫ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৫ দশমিক শূন্য ১ শতাংশে। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৮৪ শতাংশে, যা জুনে ছিল ৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

বাগেরহাট  মোরেলগঞ্জ প্রেস ক্লাবের নির্বাচন সস্পন্ন  লিপন সভাপতি, মাসুম সম্পাদক

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল