«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক

জলবায়ু পরিবর্তনে একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার

শনিবার, ০৮ জুন ২০১৯ | ৪:৪৫ পূর্বাহ্ণ | 60 বার

জলবায়ু পরিবর্তনে একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার
ফাইল ছবি

বাংলাদেশ ও ফিনল্যান্ড জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে একসঙ্গে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্তো।

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত বৈঠকে শেখ হাসিনা ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে নিরাপদ ও সম্মানের সঙ্গে ফেরত পাঠাতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দৃঢ় সমর্থন কামনা করেছেন। এদিকে বুধবার সন্ধ্যায় প্রবাসীদের দেয়া সংবর্ধনায় বক্তৃতা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তিনি বিএনপি-জামায়াত দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে উল্লেখ করে প্রবাসী বাংলাদেশি বিশেষ করে আওয়ামী লীগ কর্মীদের এসব ষড়যন্ত্র কার্যকরভাবে মোকাবেলার আহ্বান জানিয়েছেন। এ চক্রটি দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে অপপ্রচার চালিয়ে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফিনল্যান্ডে ৫ দিনের সফর শেষ করে আজ দেশে ফিরবেন। কাতার এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ফিনল্যান্ড সময় শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রী ও তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে দোহার উদ্দেশে হেলসিঙ্কি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবে।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা লেখক (সচিব) নজরুল ইসলাম হেলসিঙ্কিতে সে দেশের প্রেসিডেন্টের বাসভবনে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে বলেছেন, সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা এক মিটার বেড়ে গেলে বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ ডুবে যাবে। প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতি মোকাবেলায় তার সরকারের উদ্যোগের কথা উল্লেখ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় নিজের সম্পদ নিয়ে বাংলাদেশ ক্লাইমেট রেসিলিয়েন্স ফান্ড গঠনের কথা উল্লেখ করেছেন।

শেখ হাসিনা ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্টকে তার সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের বিষয়ে উল্লেখ করে বাংলাদেশের উপকূল বরাবর সবুজ বেল্ট নির্মাণ এবং স্বেচ্ছাসেবক দল গঠন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন ঘূর্ণিঝড় এবং জলোচ্ছ্বাসের মতো প্রভাবগুলো মোকাবেলার বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে অবগত করেন।

ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে গেলে বাংলাদেশের ওপর নেতিবাচক মারাত্মক প্রভাব পড়বে। তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগ, বিশেষ করে জলোচ্ছ্বাস থেকে ক্ষতি হ্রাসে বৈশ্বিক সতর্কবাণী ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার ওপর জোর দেন। রোহিঙ্গা বিষয়ে শেখ হাসিনা উল্লেখ করেছেন যে, বাংলাদেশ অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ দেশ এবং তাই এ বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়া খুবই কঠিন।

প্রধানমন্ত্রী উদ্বেগ প্রকাশ করেন যে, মিয়ানমার চুক্তি করার পরও রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার প্রতিশ্রুতি রাখেনি। ফিনল্যান্ড প্রেসিডেন্টের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে জোরপূর্বক নির্বাসনের পরেও মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হয়নি।

তিনি বলেন, সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়- বাংলাদেশ বন্ধুত্বের এ বৈদেশিক নীতি অনুসরণ করে। বাংলাদেশ প্রতিবেশীদের সঙ্গে খুব ভালো সম্পর্ক বজায় রাখে।

প্রধানমন্ত্রী এ বছর ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সূচকের বর্ণনা দিয়ে ফিনল্যান্ডের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহবান জানিয়েছেন।

সরকার ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ফিনল্যান্ডের বিনিয়োগকারীরা চাইলে তাদের জন্য একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল থাকতে পারে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের পরপরই বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য তিনি ফিনল্যান্ডের প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ফিনল্যান্ড দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ও পরে বাংলাদেশে যে পরিমাণ সহায়তা এবং সহযোগিতা করেছিল, তা আমরা সবসময় মূল্যবান বলে মনে করি।’

তিনি বলেন, ১৯৮১ সালে জনগণের সমর্থন নিয়ে দেশে ফিরে আসি এবং দেশের জনগণই আমাকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ৪ বার ভোট দিয়েছেন। ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী তার সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফর করার জন্য ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্টকে আমন্ত্রণ জানান এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হককে আইওএমের মহাপরিচালক নির্বাচিত করার জন্য ফিনল্যান্ডের সমর্থন কামনা করেন।

বিএনপি-জামায়াতের অপপ্রচারের সমুচিত জবাব দিন -প্রধানমন্ত্রী : হেলসিঙ্কি হোটেলে অল ইউরোপীয় আওয়ামী লীগ এবং ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের সংবর্ধনায় শেখ হাসিনা প্রবাসীদের উদ্দেশে বলেছেন, বিএনপি-জামায়াতের অবৈধভাবে অর্জিত বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার করার কারণে আর্থিকভাবে ভালো রয়েছে। তিনি বলেন, তারা এখন দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে লবিস্ট নিয়োগের জন্য অর্থ ব্যবহার করছে।

প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়নের সাফল্য তুলে ধরতে প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘যারা দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে সফল হবেন তারা দলের মধ্যে সঠিকভাবে মূল্যায়ন পাবেন।’

তিনি অপপ্রচার মোকাবেলা ও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলার পরামর্শ দেন। শুরুতে প্রধানমন্ত্রী দেশবাসী ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, হাজার হাজার মানুষ তাদের পূর্ব পুরুষদের বাড়িতে গিয়ে ঈদের আনন্দ উৎসবে যোগ দিয়েছেন। তিনি বলেন, ঈদ যাত্রায় লোকজন প্রায় জ্যাম-মুক্ত পরিবেশে গন্তব্যে যেতে পেরেছেন। যাত্রীদের জন্য রেল, নদী এবং আকাশ পথে যোগাযোগের জন্য ভালো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে এবং জনগণ তার সুবিধা পেতে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, ‘ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণে আমরা নিরলসভাবে কাজ করছি’। বঙ্গবন্ধু দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সারা জীবন সংগ্রাম করে গেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশকে খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশ হিসেবে পরিণত হয়েছিল। কিন্তু ২০০১ সালে যখন বিএনপি-জামায়াত চক্র ক্ষমতায় আসে তখন দেশটি আবার খাদ্য-ঘাটতির দেশে পরিণত হয়।

তিনি বলেন, গ্যাস বিক্রির ‘মুচলেকা’ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসেছিল। বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে নির্মম সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকাকালে ৫ বার দুর্নীতিতে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের দুর্বৃত্তায়ন ১/১১ রাজনৈতিক পরিবর্তন ডেকে এনে দুই বছরের জন্য সামরিক সমর্থিত অন্তর্বর্তীকালীন সরকার প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দিয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী অন্তর্বর্তীকালীন মেয়াদে তার দেশে প্রত্যাবর্তন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের প্রচারাভিযানে প্রবাসীদের সহযোগিতার কথা স্মরণ করেন এবং দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তাদের অবদান স্বীকার করেন।

তিনি বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে ব্যাপক আর্থ-সামাজিত উন্নয়ন ঘটেছে এবং ‘দুর্ভিক্ষ, ঘূর্ণিঝড় এবং জলোচ্ছ্বাসের’ ভাবমূর্তি মুছে ফেলেছে, যা বাংলাদেশকে ‘বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল’ হিসেবে তুলে ধরেছে। সামাজিক নিরাপত্তা নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের জন্য তার সরকারের পদক্ষেপগুলো উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে ক্ষুধার্ত ও গৃহহীন বলে কোনো ব্যক্তি থাকবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, তার সরকার শিল্পোন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের জন্য দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। অল ইউরোপীয়ান আওয়ামী লীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম, ইউকে শাখার আওয়ামী লীগ সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ ও ফিনল্যান্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আলী রামজান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। প্রবাসীদের দাবির জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফিনল্যান্ড ও নরওয়েতে প্রবাসীদের স্বার্থে হেলসিঙ্কিতে কনস্যুলেট অফিস স্থাপনের প্রস্তাব সরকার বিবেচনা করবে।

আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী : কাতার এয়ারলাইন্সের বিমান ফিনল্যান্ড সময় সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে দোহার উদ্দেশে হেলসিঙ্কি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবে। কাতারের রাজধানী দোহায় কিছুক্ষণের যাত্রা বিরতির পর প্রধানমন্ত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইনন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবেন। বিমানটি

আজ শনিবার সকালে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

 

ও/আ

 

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ-

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল