«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

বিএনপি থেকে সরে যাচ্ছে গনফোরাম

মঙ্গলবার, ০৭ মে ২০১৯ | ৩:০৯ অপরাহ্ণ | 10 বার

বিএনপি থেকে সরে যাচ্ছে গনফোরাম
 

নিজস্ব প্রতিবেদক :  হুট করে সংসদে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় তারেক রহমানের ওপর অসন্তুষ্ট দল ও জোটের অনেক নেতা। সমালোচনা হচ্ছে দলের ভেতরে ও বাইরে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলের শরিক নেতারাও বিএনপির সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছেন না। এ শপথকে কেন্দ্র করেই  গণফোরাম এবং ঐক্যফ্রন্টের ভেতর সংকট ঘনীভূত হয়। এর ফলেই  ভাঙছে গণফোরাম ও ২০ দল।

ইতিমধ্যে ২০ দলীয় জোট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি)। সোমবার রাতে দলটির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিভ রহমান পার্থ সাংবাদিকদের কাছে এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, আমার দল ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে গেল। পরে পার্থ জোট ছাড়ার যুক্তি তুলে ধরে সংবাদমাধ্যমে একটি বিবৃতিও পাঠিয়েছেন। এতে তিনি উল্লেখ করেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর ২০ দলীয় জোট স্থবির হয়ে যায় এবং রাজনীতি ঐক্যফ্রন্টমুখী হয়ে পড়ে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সরকারের সঙ্গে সংলাপে বিএনপি বাদে ২০ দলের অন্য কারও সম্পৃক্ততা ছিল না। তবে শুধুমাত্র সংহতি ও সহমত পোষণের জন্যই ২০ দলের সভা ডাকা হতো।

পার্থের অভিযোগ, ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে সংসদে যাবে না বলেছিল। কিন্তু, তারা শেষ মুহূর্তে শপথ নিয়ে সংসদে যোগ দেয়। এতে আমরা অবাক হয়েছি।বিজেপি মনে করে, শপথ গ্রহণের মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি ৩০ ডিসেম্বরের ‘প্রহসনের’ নির্বাচনকে প্রত্যাখ্যান করার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে। আর এ কারণগুলো দেখিয়েই ২০ দলের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসার কথা জানালেন পার্থ।

এদিকে মোকাব্বির খানের শপথ দিয়ে টানাপোড়েন চলছে গণফোরামে।  শপথ নেয়ার পর মোকাব্বির খানকে ধমক দিয়ে চেম্বার থেকে বের করে দেয়া হলেও নতুন কমিটিতে তাকে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া হয়েছে। তাকে সভাপতি পরিষদের সদস্য করা হয়েছে। অনেকেই মনে করছেন, মোকাব্বির খানকে ধমকের বিষয়টি ছিল আইওয়াশ। গণফোরামের এমন সিদ্ধান্তে দলটির ভেতরেও শুরু হয়েছে অস্থিরতা। অনেকেই দল থেকে পদত্যাগ করতে পারেন বলেও গুঞ্জন রয়েছে।

শপথের বিপক্ষে কঠোর অবস্থানে থাকায় অনেক নেতা তিরস্কৃত হচ্ছেন। ফ্রন্টের শরিক গণফোরামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু দলীয় পদ হারিয়েছে বলেও গুঞ্জন রয়েছে। মন্টুকে বাদ দিয়ে রেজা কিবরিয়াকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

ফলে দলটিতে ভাঙনের সুর বেজে উঠেছে। যার ফলশ্রুতিতে ‘তৃণমূল গণফোরাম’ নামে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের প্রক্রিয়াও শুরু করেছেন পদ বঞ্চিত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা। যার অগ্রভাগে রয়েছেন গণফোরামের সাবেক প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম পথিক।

দীর্ঘদিন ধরে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকা মোস্তফা মহসীন মন্টুর জায়গা হয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটির ১ নম্বর সদস্য পদে। তবে দলটির সাবেক প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম পথিককে কোনো পদে রাখা হয়নি। এদিকে পদ বঞ্চিত ও কাঙ্খিত পদ না পাওয়া নিয়ে গণফোরামে তৈরি হয়েছে অস্বস্তি। তাই সাবেক সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকা মোস্তফা মহসীন মন্টু ও সাবেক প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম পথিক গণফোরামে থাকছেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়েছেন বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান। ইরান গণমাধ্যমকে বলেছেন, কিছুক্ষণের মধ্যে লেবার পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবো। আমরা জোট থেকে বের হয়ে যাওয়ার জন্য বিএনপিকে আল্টিমেটাম দেবো।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

রাজমিস্ত্রির সাজে খুনি ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা লালবুর রহমান

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল