«» মূলমন্ত্রঃ : সত্যের পথে,জনগনের সেবায়,অপরাধ দমনে,শান্তিময় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে" আমরা বাঙালি জাতীয় চেতনায় বিকশিত মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষে সত্য এবং ধর্মমতে বস্তুনিষ্ঠ, সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতায় সর্বদা নিবেদিত। «»

স্বর্গ-মর্ত্যজুড়ে আজ নারীরা

শনিবার, ০৯ মার্চ ২০১৯ | ৬:৫০ পূর্বাহ্ণ | 231 বার

স্বর্গ-মর্ত্যজুড়ে আজ নারীরা।ছবি-সংগৃহীত

সভা, সমাবেশ, শোভাযাত্রাসহ নানা আয়োজনের
মধ্য দিয়ে শুক্রবার আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন
করা হয়। এ উপলক্ষে ঢাকাসহ সারা দেশে রং-
বেরঙের ব্যানার-ফেস্টুনে নারীর প্রতি সহিংসতা
প্রতিরোধের কথা উঠে আসে। এ দিবসে
শুক্রবার রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা
ইন্সটিটিউটে বেগম বদরুন্নেসা আহমেদ ট্রাস্ট
নারী সম্মাননা প্রদান করা হয় পাঁচ বিশিষ্ট নারীকে।
অনুষ্ঠানে জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান তাদের
হাতে সম্মাননা তুলে দিয়ে বলেন, এখনও যারা
মনে করেন বাংলাদেশের নারীদের তৃতীয়-
চতুর্থ শ্রেণীর বেশি পড়ানো উচিত নয়, যারা
এখনও নারীদের শুধু ঘরের কাজে দেখতে চান,
তাদের বিরুদ্ধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।
এ সময় তিনি নারীর অগ্রগতিকে উল্লেখযোগ্য
অর্জন হিসেবে বর্ণনা করে বলেন, যারা মনে
করেন নারীর জায়গা গৃহকর্মে তাদের বিরুদ্ধে
লড়াই বাকি রয়ে গেছে। এ যুদ্ধে আমাদের
অগ্রসর হতে হবে। বাংলাদেশে নারীর অগ্রগতির
চিত্র তুলে ধরে বলেন, গার্মেন্ট শিল্প থেকে
বিমানের দক্ষ পাইলট, বলা যায় স্বর্গ-মর্ত্যজুড়ে
তারা আছে।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তৃতায়
হেফাজতে ইসলামের আমীর শাহ আহমদ শফীর
একটি বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে জাতীয়
অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, এতে বোঝা যায়
নারীর এগিয়ে যাওয়ার পথ সুগম নয়।
অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, এখনও দেশে
নারী শিক্ষাবিরোধী মানুষ আছেন। যারা বলেন
যে, মেয়েদের ক্লাস থ্রি-ফোরের বেশি
পড়ানো উচিত নয়, পড়ালে তারা স্বামীর অবাধ্য
হয়ে যায়। ২০১৯ সালে এটা আমরা শুনছি, এটা
আমাদের কাছে অবাকই লাগে।
অনুষ্ঠানে দেশের প্রথম নারী সংসদ উপনেতা
সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, প্রথম নারী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন, প্রথম নারী স্পিকার
শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রথম নারী
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এবং
প্রথম নারী মেজর জেনারেল সুসানে
গীতিকে ২০১৯ সালের বেগম বদরুন্নেসা
আহমেদ ট্রাস্ট নারী সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।
তাদের হাতে সম্মাননা স্মারক ও বই তুলে দেয়ার
পর অভিনন্দন জানিয়ে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান
বলেন, তাদের দৃষ্টান্ত অন্য নারীর জন্য
অনুপ্রেরণামূলক। তারা জাতির উন্নয়নে আরও বলিষ্ঠ
ভূমিকা রাখবে। এ সময় সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীও
বলেন, এ সম্মাননা নারীদের এগিয়ে যাওয়ার
ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখবে।
স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, নারীদের
এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ
বিশ্বের যে কোনো সমাজের মতোই
এখানেও বিরাজমান। এরপরও তারা সব ক্ষেত্রে
দৃশ্যমান অবদান রাখছেন। সেজন্য সব নারীকে
আমি সশ্রদ্ধ অভিবাদন জানাই। আওয়ামী লীগ
প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহারা খাতুন বলেন, পুরুষের সমান
যেন নারীরাও হতে পারি, সেইভাবে আমরা কাজ
করে যেতে চাই, লড়াই করে যেতে চাই।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি অধ্যাপক নাসরিন
আহমেদের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে অন্যদের
মধ্যে বেগম বদরুন্নেসা আহমেদ ট্রাস্টের
ট্রাস্টি মাহফুজা খাতুন, বাংলা রেকর্ডসের চেয়ারম্যান
ও সাবেক কারা মহাপরিদর্শক ইফতেখার উদ্দিন
বক্তব্য দেন। এছাড়া আন্তর্জাতিক নারী দিবস
উপলক্ষে বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করে।
সামাজিক প্রতিরোধ কমিটি : বিকালে কেন্দ্রীয়
শহীদ মিনারে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও
বন্ধের আহ্বান জানিয়ে ৬৬টি নারী ও মানবাধিকার
সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত এ কমিটির প্রায় ৩ হাজার
সদস্য হাজির হন। আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তৃতায়
বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়শা খানম বলেন,
দেশে নারীরা নিজ নিজ যোগ্যতায় এগিয়ে
যাচ্ছে। অপরদিকে নিজ যোগ্যতা থাকার পরও
নারীরা তার যথাযথ স্থানে পৌঁছতে পারছে না।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- নারী নেত্রী
রোকেয়া কবির, শাহীন আনাম, বনানী বিশ্বাস,
হেলেনা তালং প্রমুখ।
জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম : র্যালি,
আলোচনা সভা, সম্মাননা প্রদান ও সাংস্কৃতিক
অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করেছে
সংগঠনটি। শুক্রবার সকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন
মিলনায়তনে আলোচনা সভায় হয়। এর আগে শহরে
র্যালি বের করে। র্যালির উদ্বোধন করেন
জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের
সভাপতি ড. বদিউল আলম মজুমদার।
প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়শা
খানম, উপস্থিত ছিলেন নারী নেত্রী শাহীন
আক্তার ডলি, ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নাছিমা
আক্তার জলি। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক
কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনু ও নিউজ
টুয়েন্টিফোরের প্রধান বার্তা সম্পাদক শাহনাজ
মুন্নীকে সম্মাননা দেয়া হয়।
নারী সংহতি : ‘ধর্ষণ-যৌন নিপীড়ন-ভীতি রুখো,
আসুন নারীর আত্মমর্যাদা, নিরাপত্তা ও অধিকার
প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হই’ শিরোনামে র্যালি ও
সমাবেশ করেছে সংগঠনটি। শুক্রবার জাতীয়
প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশে বক্তব্য
রাখেন- সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নারী নেত্রী
অপরাজিতা চন্দ, নারী নেত্রী কানিজ ফাতেমা
প্রমুখ।
গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক : নারী
গৃহশ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষায় চাই নীতি বাস্তবায়ন
ও আইন প্রণয়ন শীর্ষক স্লোগান সামনে
রেখে শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের
সামনে মানববন্ধন ও আলোচনা সভা করে সংগঠনটি।
বক্তব্য রাখেন নারী নেত্রী আনোয়ার
হোসেন, সামসুন্নাহার ভূঁইয়া, শ্রমিক নেতা ডা.
ওয়াজেদুল ইসলাম খান, আবুল হোসেন প্রমুখ।
এ উপলক্ষে মানববন্ধন, আলোচনা সভা ও সমাবেশ
করে সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন,
আওয়াজ ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ গার্মেন্ট ওয়ার্কার্স
প্রটেকশন অ্যালায়েন্স, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি,
বাংলাদেশ জাতীয় গামেন্টস শ্রমিক কর্মচারী
লীগ, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী টেনওয়ার্কের
নেতারা।
বাংলাদেশ নারী মুক্তি সংসদ : সংগঠনের ঢাকা
মহানগরের উদ্যোগে রাজধানীর ৩০ তোপখানা
রোডে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে
আলোচনা সভা এবং র্যালি হয়। বাংলাদেশ নারী মুক্তি
সংসদ ঢাকা মহানগর সভাপতি রায়হানা কামালের
সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন সংগঠনের কেন্দ্রীয়
সভানেত্রী হাজেরা সুলতানা, আনিসুর রহমান মল্লিক,
আবুল হোসাইন, মোস্তফা আলমগীর রতন, জাকির
হোসেন রাজু, শিউলী শিকদার, কিশোর রায়, নাজমা
বেগম, বিপাশা চক্রবর্তী প্রমুখ। নেতারা নারী-
শিশু-কিশোরীর প্রতি সব ধরনের সহিংসতা বন্ধের
দাবি জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে আইনের কঠোর
বাস্তবায়ন এবং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার
আহ্বান জানানো হয়।

 

 

ও/আ

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

কবিতা- “স্কাউট আত্মকথা”

Development by: bdhostweb.com

চুরি করে নিউজ না করাই ভাল